এমন হার আগে কখনো দেখেনি ভারত

0

হ্যামিল্টনে সিরিজের চতুর্থ ওয়ানডেতে নিউজিল্যান্ডের কাছে পাত্তাই পায়নি ভারত

বিরাট কোহলির ভক্তরা এমন ভাবতেই পারেন। কোহলি ছিলেন না তাই ভারতের এই আশ্চর্য পতন। বিশ্রাম পেয়েছেন ভারতের নিয়মিত এই অধিনায়ক। তাঁর বিকল্প হিসেবে আজ হ্যামিল্টনে ওয়ানডে সিরিজের চতুর্থ ম্যাচে নেতৃত্ব দেন রোহিত শর্মা। ওয়ানডেতে এটি ছিল তাঁর ২০০তম ম্যাচ। রোহিতও এখন ভাবতেই পারেন, মাইলফলকের ম্যাচে নেতৃত্বভার না পেলেই ভালো হতো। এমন ম্যাচে কোথায় প্রতিপক্ষকে দুমড়ে-মুচড়ে ফেলবে তাঁর দল, সেখানে প্রথম ইনিংসেই ম্যাচের ভাগ্য নির্ধারিত!

অথচ নিউজিল্যান্ড সফরে গিয়ে এই ওয়ানডে সিরিজের প্রথম তিন ম্যাচে স্বাগতিকদের পাত্তাই দেয়নি ভারত। প্রথম ম্যাচে ৮ উইকেটে জয়ের পর দ্বিতীয় ম্যাচে এসেছে ৯০ রান ব্যবধানের জয়। সর্বশেষ ওয়ানডেতে সিরিজ জয়ের মুখ দেখেন কোহলিরা। সেটিও ৭ উইকেটের জয়, ৪২ বল হাতে রেখে। পাঁচ ম্যাচের সিরিজটি তখনই ৩-০ ব্যবধানে জয় নিশ্চিত করে ভারত। সফরকারি দলের দুর্দমনীয় খেলায় মুগ্ধ হয়ে চমৎকার রসিকতাও করেছে নিউজিল্যান্ডের পুলিশ। মোট কথা, চতুর্থ ম্যাচে এসে ভারতের যে এমন আশ্চর্য পতন ঘটবে তা কেউ ভাবেনি। সবাই যেন ভুলে গিয়েছিল, ক্রিকেট এখনো গৌরবময় অনিশ্চয়তার খেলা!

বিশেষ করে ভারতীয় দলের টিম ম্যানেজমেন্ট। দোর্দণ্ডপ্রতাপে সিরিজ জয় নিশ্চিতের আনন্দে তাঁরা বোধ হয় একটু বেশিই নির্ভার হয়ে পড়েছিলেন। নইলে সিরিজের বাকি দুই ম্যাচে হয়তো বিশ্রাম পেতেন না কোহলি। এই সুযোগে নিউজিল্যান্ডও জেগে উঠল। তবে বেশ দেরি হয়ে গেছে। সিরিজটা যে এরই মধ্যে হাতছাড়া! নইলে চতুর্থ ওয়ানডেতে ভারতকে ৯২ রানে অলআউট করে ৮ উইকেটের জয়টা কিউইদের জন্য আলাদা তাৎপর্য বহন করত। অবশ্য একেবারে যে তাৎপর্য নেই তা নয়, ২১২ বল হাতে রেখে জিতেছে নিউজিল্যান্ড। ওয়ানডেতে বল হাতে রাখার হিসেবে প্রতিপক্ষ দলের এমন অনায়াস জয় এর আগে কখনো দেখেনি ভারতীয় ক্রিকেট।

ভুল পড়েননি। কোহলি না থাকলেও ভারতের তারকাখচিত ব্যাটিং লাইন আপ কিউই পেসারদের সামনে এক শ রানও তুলতে পারেনি। সর্বোচ্চ ১৮ রান করেছেন দশে নামা যুজবেন্দ্র চাহাল। ওয়ানডেতে এর আগে ভারতের হয়ে দশে নেমে চাহালের চেয়ে বেশি রানের রেকর্ড করেছেন শুধু জাভাগাল শ্রীনাথ। ১৯৯৮ সালে টরেন্টোয় পাকিস্তানের বিপক্ষে ৪৩ রান করেছিলেন তিনি। সেই ম্যাচেও ভারতের ব্যাটিং এতটা বাজে (১৮০) ছিল না, যতটা দেখা গেল আজ। একটি পরিসংখ্যান দেওয়া যায়, সিরিজে আগের তিন ম্যাচে ভারতের সব ব্যাটসম্যানই অন্তত দুই অঙ্কের রানের দেখা পেয়েছেন। কিন্তু আজ এক ম্যাচেই দুই অঙ্কে যেতে পারেননি ভারতের সাত-সাতজন ব্যাটসম্যান।

ওয়ানডেতে এক শ রানের নিচে গুটিয়ে যাওয়ার ব্যথা ভারত প্রায় ভুলেই যেতে বসেছিল। সর্বশেষ তাঁরা এমন বিপর্যয়ে পড়েছিল ২০১০ সালে ডাম্বুলায় এই নিউজিল্যান্ডেরই বিপক্ষে। ৯ বছর পর আজ ভারতকে যেন সেই স্মৃতিই মনে করিয়ে দিলেন ট্রেন্ট বোল্ট। নিউজিল্যান্ডের এ পেসার আজ কতটা ভালো বল করেছেন তা টুইটে বুঝিয়ে দেন হর্শা ভোগলে। খ্যাতিমান এ ক্রিকেট বিশ্লেষক, ধারাভাষ্যকারের টুইট, ‘বোল্টের স্পেলটি এক কথায় অসাধারণ। কী দারুণ বোলার!’

দুর্দান্ত সুইং আর নিখুঁত লাইন-লেংথের সমন্বয়ে ২১ রানে ৫ উইকেট নেন এই কিউই পেসার। বোল্টের ১০ ওভারের স্পেল যখন শেষ হয় ভারতের স্কোর তখন ৮ উইকেটে ৫৫! নিউজিল্যান্ডের ওয়ানডে ইতিহাসে একমাত্র বোলার হিসেবে ওয়ানডেতে পাঁচবার ৫ উইকেট নিয়েছিলেন স্যার রিচার্ড হ্যাডলি। হ্যামিল্টনে তোপ চালিয়ে হ্যাডলির সেই রেকর্ডে ভাগ বসালেন বোল্ট। বাঁ হাতি এই পেসারের তোপেই নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়ানডেতে দ্বিতীয় সর্বনিম্ন রানে গুটিয়ে যায় ভারত।

তাড়া করতে নেমে নিউজিল্যান্ড অবশ্য খুব বেশি সময় নেয়নি। ২১২ বল হাতে রেখে স্বাগতিকরা জিতেছে ৮ উইকেটের ব্যবধানে। ওয়ানডেতে বল হাতে রাখার হিসেবে এটি ভারতের সর্বোচ্চ ব্যবধানের হারের নজির। এর আগের রেকর্ডটি ছিল ২০৯ বলের, ২০১০ সালে ডাম্বুলায় ২০৯ বল হাতে রেখে জিতেছিল শ্রীলঙ্কা। রোববার ওয়েলিংটনে সিরিজের পঞ্চম ও শেষ ম্যাচ।

আপনার মন্তব্য

আপনার মন্তব্য
আপনার নাম লিখুন